ঢাকা বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ৯, ২০২০

তার জন্যই ইতালিতে ছড়িয়ে পড়ে করোনা

কিকে মাতেও। স্প্যানিশ ফুটবল ভক্তদের কাছে খুব পরিচিত এক মুখ। দেশটির জনপ্রিয় রাতের ফুটবল শো ‘এল চিরিঙ্গুইতো ডি ইউগোনেস’-এর একজন কন্ট্রিবিউটর হিসেবে কাজ করে থাকেন তিনি। মিলানের বিখ্যাত সানসিরো স্টেডিয়ামে ১৯ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগে স্প্যানিশ ক্লাব ভ্যালেন্সিয়া বনাম ইতালিয়ান ক্লাব আটলান্টার ম্যাচে গ্যালারিতে উপস্থিত ছিলেন তিনিও।

করোনাভাইরাস ইতালিতে ছড়িয়ে পড়ার পেছনে অন্যতম বড় কারণ হিসেবে এখন দেখা হচ্ছে ভ্যালেন্সিয়া এবং আটলান্টার এই ম্যাচটিকে। যেখানে জমায়েত হয়েছিলেন প্রায় ৪০ হাজার দর্শক। করোনা ভাইরাস তখন কেবল ইতালিতে একটি-দুটি আক্রান্ত হওয়ার খবর শোনা যাচ্ছিল।

ইতালিয়ান ডাক্তারদের সঙ্গে কিকে মাতেও’ও এখন বলছেন, ওই সময় সানসিরোয় এতবড় ফুটবল জমায়েত না হলে হয়তোবা ইতালি, স্পেনে এভাবে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার সুযোগ পেতো না। অর্থ্যাৎ, ইতালিয়ান ডাক্তাররা এখন করোনাভাইরাস এভাবে ছড়িয়ে পড়ার পেছনে সেই ম্যাচটিকেই সবচেয়ে বেশি দায়ী করছেন।

ভ্যালেন্সিয়ার ম্যাচ কাভার করার জন্যই স্পেন থেকে ইতালিতে গিয়েছিলেন কিকে মাতেও। তিনি সেখানে প্রেস কনফারেন্সে অংশ নেন। ম্যাচে তিনি ছিলেন অনেক মানুষের সঙ্গে। ম্যাচ শেষে মিক্সডজোনে কয়েকজন ফুটবলারের ইন্টারভিউও নিয়েছিলেন। ইতালিতে সেদিন পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত ছিল মাত্র তিনজন।

তবে মাতেও এখন সুস্থ। ৯দিন আইসোলেশনে ছিলেন মাতেও। শুধু দু’একটি বই ছিল পড়ার জন্য। টিভি ছিল দেখার জন্য। চারজন ডাক্তার নিয়ম করে তাকে চিকিৎসা দিয়ে গেছেন। ১০ম দিনে গিয়ে ডাক্তাররা ঘোষণা দিলো মাতেও ‘ওকে’। করোনামুক্ত হয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসেন কিকে মাতেও।