ঢাকা সোমবার, মে ২৫, ২০২০

কপালটাই খারাপ ভিনিসিয়াসের

রিয়াল মাদ্রিদের তারকাদের মধ্যে ভিনিসিয়াস জুনিয়র যদি নিজেকে দুর্ভাগা ভাবেন তাহলে হয়তো খুব একটা খারাপ হবে না। পরপর দুটি মৌসুমেই যখন তার সেরা ছন্দ চলছিল তখনই কোন না কোন কারণে মাঠ থেকে ছিটকে যেতে হল তাকে।

আগের মৌসুমে সান্তিয়াগো সোলারির অধিনে নিজেকে রিয়ালের সেরা তারকা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছিলেন ব্রাজিলিয়ান এই তরুণ তারকা। কিন্তু যখন তার সুসময় চলছে তখনই আয়াক্সের বিপক্ষে ইনজুরির কারণে মাঠ ছাড়তে হয় তাকে এবং সেখানেই মৌসুমে তার সোনালী সময়টা শেষ হয়ে যায়।

এরপর কোচ হয়ে আসেন জিদান। তার প্রাধান্য থাকে এই পজিশনে বড় কোন তারকা নিয়ে আসার। সেটাই করেন তিনি। হ্যাজার্ডকে আনেন। তাতে করে জিদানের অধিনে একাদশে জায়গা পেতে লড়াই করা ভিনিসিয়াসের লড়াইটা আরও কঠিন হয়ে যায়।

তবে হ্যাজার্ডের ইনজুরিতে কপাল খুলে তার। আর মৌসুমের শুরুতে অফ ফর্মে থাকা ভিনিসিয়াসও ছন্দে ফিরেন বেশ দারুণ ভাবেই।

ভিনিসিয়াসের সবকিছু পরিবর্তন হয়ে যায় মাদ্রিদ ডার্বিতে। বদলি হয়ে নেমে ম্যাচের মোড়টাই পাল্টে দিয়েছিলেন তিনি। সেই সঙ্গে পাল্টে যায় তার গতিপথও।

ম্যানসিটির বিপক্ষে চ্যাম্পিয়নস লিগের ম্যাচে ২-১ গোলে হেরেছিল রিয়াল। কিন্তু রিয়ালের গোলটির অ্যাসিস্ট এসেছিল তার পা থেকেই। একই সঙ্গে ভিনিসিয়াস যে সময়টা মাঠে ছিল ততক্ষন রিয়ালই এগিয়ে ছিল। এই ম্যাচে ভিনিসিয়াসকে বদলি করানোর জন্য জিদানেরও সমালোচনা করেন রিভালদো।

বার্সালোনার বিপক্ষে এল ক্লাসিকোতে আরও একবার সেরা পারফর্মার তিনি। বার্সাকে পুরো ম্যাচে নাঁচানো ভিনিসিয়াস প্রথম গোলটি তুলে নেন। যখন এমন দুর্দান্ত সময় পার করছেন তিনি তখনই করোনা ভাইরাসের কারণে ফুটবলটাই বন্ধ হয়ে গেল।