ঢাকা বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ৯, ২০২০

সুযোগ না দিলে ট্যালেন্ট কি লাভ কি

রিয়াল মাদ্রিদ যখন বেশ খারাপ অবস্থায় ছিল কয়েকমাস আগে তখন রিয়ালকে আশার আলো দেখিয়েছেন রোদ্রিগো গোয়েস। এই মৌসুমেই রিয়াল মাদ্রিদে আসা এই তারকা এখনো পর্যন্ত রিয়ালের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ গোলদাতা। হ্যাটট্রিক করেছেন চ্যাম্পিয়নস লিগে। গোল পেয়েছে লা লিগাতেও।

কিন্তু দারুণ পারফর্ম করার পরও একাদশে সুযোগ মিলছে না তার। একাদশে সুযোগ মেলা’তো পরের কথা, স্কোয়াডেই জায়গা হচ্ছে না তার। তাই প্রশ্ন দেখা দিয়েছে তাদের নিয়ে জিদানের পরিকল্পনা আসলে কি?

কিলিয়ান এমবাপ্পেকে কেনার জন্য ১৮০ থেকে ২০০ মিলিয়ন খরচ করতে প্রস্তুত রিয়াল মাদ্রিদ। কিন্তু এমবাপ্পের পজিশনেই খেলা রোদ্রিগো গোয়েসকে নিয়মিত সুযোগ দিলে তার মতই হওয়ার সবগুনই আছে রোদ্রিগোর মধ্যে। কিন্তু তাকে রাখা হচ্ছে বেঞ্চে।

কোপা ডেল রে তে রিয়াল মাদ্রিদ হেরেছিল সোসিয়েদাদের বিপক্ষে। ওই ম্যাচে বদলি হয়ে নেমেই গোল করেছিলেন তিনি। কিন্তু তারপরও তাকে অ্যাতলেটিকো মাদ্রিদ, ওসাসুনা এবং সেল্টা ভিগোর বিপক্ষে ম্যাচের স্কোয়াডেই রাখেনি জিদান।

প্রশ্ন দেখা দিয়েছে একজন তারকা ভালো পারফর্ম করার পরও তাকে এভাবে একাদশের বাইরে রাখার যুক্তি কি?

রিয়াল মাদ্রিদ এমবাপ্পেকে কিনতে চায়। অথচ এমবাপ্পে যখন মোনাকোতে ছিল তখন সে রোদ্রিগোর মতই ছিল। তাকে মোনাকো সুযোগ দেয়ার পর আজকের এমবাপ্পে সে হয়েছে। রিয়ালের আরেক টার্গেট বুরুশিয়ার জ্যাডন সাঞ্চো। ম্যানসিটিতে সুযোগ না পেয়ে বুরুশিয়াতে গিয়ে সুযোগ পেয়েছেন। কাজে লাগিয়েছেন। আবারও সুযোগ পেয়েছেন। নিজেকে প্রমান করেছেন। এখন তিনি বুরুশিয়ার সেরা তারকা।

ঠিক একই রকম ভাবে রিয়াল মাদ্রিদ কেন তাদের ট্যালেন্ট গুলো ব্যবহার করতে পারছে না? ভিনিসিয়াস জুনিয়র, রোদ্রিগো, ব্রাহীম, জোভিকরা যে ম্যাচেই সুযোগ পেয়েছে সেটাতেই নিজেদের প্রমান করেছেন। তারপরও কেন তারা ব্রাত্য জিদানের প্লান থেকে?

এজন্যই রেনিয়ের জেসুসের প্রেজেন্টেশন অনুষ্ঠানের লাইভে রিয়ালের পেজে একজন কমেন্ট করে বলেছিল, “কি লাভ এই ট্যালেন্ট কিনে যদি তাদের সুযোগই না দেয়া হয়।”