২০২২ সালে বড় চারটি চ্যালেঞ্জ মেসির

২০২২ সালের শুরুটা মেসির জন্য সুখকর হয়নি। এই বছরের শুরুতেই করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন তিনি। তবে সেখান থেকে সুস্থ হয়ে নিজ ক্লাব পিএসজিতে ফিরে এসেছেন।

৩৪ বছর বয়সী লিওনেল মেসি ইতিমধ্যে ফুটবল ইতিহাসের সেরাদের কাতারে নিজের নামটি লিখে নিয়েছেন। তবে ২০২২ সালে কিছু অর্জন তাকে আরও উপরে তুলে দিতে পারে।

লিওনেল মেসির ক্যারিয়ারে অন্যতম সেরা অর্জনগুলোর মধ্যে নিশ্চিত ভাবেই জাতীয় দলের হয়ে কোপা আমেরিকার শিরোপাটি থাকবে। এই শিরোপা তাকে দিয়েছে প্রথম কোন আন্তর্জাতিক শিরোপা যা মেসি জিতেছেন ২০২১ সালে।

তবে ২০২২ সালে এমন চারটি চ্যালেঞ্জ মেসির সামনে রয়েছে যেগুলো জিততে পারলে মেসির নামটি আরও অনেক উপরে উঠে যাবে। কি সেই চারটি চ্যালেঞ্জ?

১. গত সামারে বার্সালোনা ছাড়ার পর পিএসজিতে গিয়ে মন্দ সময় পার করছেন লিওনেল মেসি। বার্সালোনা ছেড়ে পিএসজিতে যাওয়ার পর এখনও পর্যন্ত লিগ ওয়ানে মাত্র একটি গোল করেছেন মেসি।

লিগ ওয়ানের শিরোপা জয় নিয়ে পিএসজির চিন্তা করার কোন অপশনই নেই। তারা দ্বিতীয় স্থানে থাকা দলের থেকে অনেক বেশি ব্যবধানে এগিয়ে শীর্ষে রয়েছে। এই শিরোপা মেসিকে অন্য একটি লিগ শিরোপা জয়ের স্বাদ এনে দিতে পারে।

তবে মেসির এই বছরে একটি চ্যালেঞ্জ হচ্ছে নিজেকে আরও উচ্চ পর্যায়ে নিয়ে যাওয়া। লিগ ওয়ানে অর্ধেকটা পেরিয়ে গেছে। এই সময়ে মাত্র এক গোল তার। অ্যাসিস্ট রয়েছে ৫টি। মেসির সামনে এখন চ্যালেঞ্জ, লিগ ওয়ানে আরও বেশি গোল করার।

২. পিএসজি মেসিকে কিনেছে লিগ ওয়ানের শিরোপা জেতার জন্য নয়, তারা মেসিকে কিনেছে চ্যাম্পিয়নস লিগ জেতার জন্য। আর যদি মেসি পিএসজিকে চ্যাম্পিয়নস লিগ জেতাতে পারে তাহলে নিশ্চিত ভাবেই পিএসজির লিজেন্ডই হয়ে যাবেন।

পিএসজি চ্যাম্পিয়নস লিগ জেতার জন্যই চেষ্টা করছে অনেক বছর ধরে। মেসি, নেইমার, এমবাপ্পে, রামোস, ডুনারুম্মা, হাকিমি, ডি মারিয়ার মত প্লেয়ার রয়েছে তাদের। মেসির সামনে সুযোগ, এই দলটিকে চ্যাম্পিয়নস লিগ জিতিয়ে পিএসজির ইতিহাসে জায়গা করে নেয়ার।

৩. ২০২২ সালে রয়েছে ফুটবলের সবচেয়ে বড় টুর্নামেন্ট ফিফা বিশ্বকাপ। আর এই বিশ্বকাপটিই মেসির জন্য শেষ বিশ্বকাপ সেটা বলার অপেক্ষা রাখে না।

মেসি জাতীয় দলের হয়ে কোপা আমেরিকা জিতেছে। কিন্তু একটা বিশ্বকাপ তাকে অনেকদূর পৌছে দিতে আরে। আর্জেন্টিনার হয়ে ২০১৪ সালে বিশ্বকাপ জয়ের খুব কাছে পৌছে গিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু ফাইনালে সেবার হারতে হয় জার্মানীর কাছে।

ল্যাতিন আমেরিকা থেকে ইতিমধ্যে বিশ্বকাপ ২০২২ এ খেলা নিশ্চিত করেছে আর্জেন্টিনা। তাদের দলটি বর্তমানে বেশ ছন্দেই আছে। মেসিও তাই স্বপ্ন দেখতেই পারে বিশ্বকাপ জেতার।

৪. ইতিমধ্যে রেকর্ড সাতটি ব্যালন ডি অর জিতেছেন লিওনেল মেসি। ফুটবল ইতিহাসে আর কোন প্লেয়ার এতগুলো ব্যালন ডি অর জিততে পারেনি। মেসির নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী রোনালদো জিতেছে ৫টি ব্যালন ডি অর।

মেসির সামনে এখন সুযোগ অস্টম ব্যালন ডি অর জেতার। তার দলের লিগ ওয়ান শিরোপা তো অনেকটাই নিশ্চিত। এখন বাকি আছে চ্যাম্পিয়নস লিগ এবং বিশ্বকাপ। এই টুর্নামেন্টগুলোতে ভালো করলে অস্টম ব্যালন ডি অরটিও তার হাতে উঠতে পারে।

Related posts