এমবাপ্পের চেয়েও হালান্ডকে বেশি প্রয়োজন রিয়ালের

পিএসজির সঙ্গে এমবাপ্পের চুক্তি শেষ হবে ২০২২ সালে। তাই পিএসজি চাচ্ছে এমবাপ্পের সঙ্গে নতুন চুক্তি করতে। কিন্তু এমবাপ্পে রাজি হচ্ছে না। তাই সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে এমবাপ্পের নতুন ক্লাবে যাওয়ার।

সেই ক্লাবটি কোনটি হবে? বার্সালোনা নাকি রিয়াল মাদ্রিদ? নাকি লিভারপুল? যদিও অনেক দিন ধরেই গুঞ্জন এমবাপ্পে আসতে চায় রিয়ালে এবং রিয়াল মাদ্রিদ কিনতে চায় এমবাপ্পেকে।

কিন্তু এমবাপ্পেকে আসলে রিয়াল মাদ্রিদের কতটা দরকার? এই প্রশ্নটা আসবে সবার আগে। এটাতে কোন ভুল নেই যে এমবাপ্পে যদি আসে তাহলে সে যে উইংয়ে খেলবে সেই উইংয়ের উন্নতি হবে। তার কাছ থেকে অনেক বছর সার্ভিস পাবে যেকোন দলই। কিন্তু রিয়াল মাদ্রিদের তাকে কতটা দরকার?

রিয়াল মাদ্রিদে ইতোমধ্যে রয়েছে দুজন তরুণ উইঙ্গার ভিনিসিয়াস জুনিয়র এবং রোদ্রিগো গোয়েস। উইংয়ে রোদ্রিগো সাম্প্রতিক সময়ে দুর্দান্ত পারফর্ম করছিলেন। ভিনিসিয়াস জুনিয়রের সাম্প্রতিক সময় খারাপ গেলেও তার প্রতিভা নিয়ে কোন সন্দেহ নেই কারোই। তাদের সুযোগ দিতে হবে বেড়ে উঠার জন্য। সেই সঙ্গে অভিজ্ঞ হ্যাজার্ড তো আছেই।

এমবাপ্পে আসলে উইংয়ে স্বাভাবিক ভাবেই সমৃদ্ধ হবে। কিন্তু এই প্রজিশনটা এখনো তাকে ছাড়াই বেশ ভালো ভাবেই পূরণ হচ্ছে। কিন্তু আসল সমস্যা হচ্ছে সেখানে- যেখানে গোলের জন্য মাথা ঠুকে মরতে হচ্ছে।

রিয়াল মাদ্রিদের একমাত্র আস্থার স্ট্রাইকার হচ্ছেন করিম বেনজামা। কিন্তু এই বেনজামা কখন ফর্মে থাকবেন বা কখন গোল মিসের বন্যা বইয়ে দিবেন তার কোন ঠিক নেই। তার ব্যাকআপ হিসেবে যে আছেন সেই জোভিক আবার নিজেকে প্রমান করতে পারেননি। আবার জিদানের আস্থার পাত্রও হতে পারেননি। তাই কাজ চালাতে হচ্ছে বেনজামাকে দিয়েই।

রোনালদো যাওয়ার পর করিম বেনজামার উপরই পুরোপুরি নির্ভর হয়ে গেছে রিয়ালের আক্রমন ভাগ। অধিকাংশ ম্যাচেই আবার দেখা যাচ্ছে রিয়াল মাদ্রিদ জিতে অল্প ব্যবধানে এবং গোলও আসে মিডফিল্ডার বা ডিফেন্ডারদের কাছ থেকে। এই যখন অবস্থা তখন স্ট্রাইকার পজিশনে স্বাভাবিক ভাবেই এমন কাউকে দরকার যিনি রোনালদোর মতই বেশি বেশি গোল করতে পারেন। আর সেই প্লেয়ারটি হতে পারে হালান্ড।

বুরুশিয়া ডর্টমুন্ডে একের পর এক গোল করেই যাচ্ছেন হালান্ড। ওইদিকে বেনজামার বয়সও হয়ে ৩৩। রিয়ালে হয়তো আর বছর দুয়েক থাকবেন তিনি। তাই বেনজামা পরবর্তি রিয়ালের স্ট্রাইকার পজিশনে এমন কাউকে দরকার যাকে দিয়ে এগিয়ে যেতে পারবে রিয়াল। আর সেই প্লেয়ারটিই হচ্ছেন হালান্ড।

Related posts

Leave a Comment